মুভির নাম : Harry Potter and the philoshoper’s stone

★★Harry Potter ★★

হ্যারি পটার সিরিজের মাধ্যমে জে কে রোলিং আমাদের পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন এক জাদুময় জগতের সাথে। সেই জগতের বিভিন্ন দিক, আমরা পেয়েছি সাত পর্বের বইয়ের সিরিজগুলো তে। এসবের মাধ্যমে জাদুময় জগতের বিভিন্ন নতুন নতুন দিক আমাদের সামনে এসেছে।
হ্যারি পটারের জাদুময় জগতকে কেন্দ্র করে মুক্তি পেয়েছে ৮টি চলচ্চিত্র।

যারা আট পর্বের মুভি সিরিজটি দেখেন নি, তাদের কাছে জে কে রোলিং এর সৃষ্ট জাদুময় জগতের অনেক কিছুই এখনো অজানা রয়ে গেছে।

চলুন তাহলে আমরা চলে যাই জাদুময় জগতের সেসব অজানা অধ্যায়ে।

🔴মুভির নাম : Harry Potter and the philoshoper’s stone 🔴

Genre :Adventure, Family,Fantasy…

Year(2001)
Part-(01)

IMDB : 7.6

বিশ্বের সবচেয়ে ব্যবস্যা সফল মুভি সিরিজ হলো হ্যারি পটার সিরিজটি। অনেকে হয়তো ভাববেন, এই বাচ্চা-কাচ্চার মুভি সিরিজ এত নাম করলো কিভাবে?

এই মুভিটির বাজেট ধরা হয়েছিল ১২৫ মিলিওন মার্কিন ডলার, কিন্তু ছবিটি অসংখ্য রেকর্ড ভেঙ্গে আয় করে ৯৮০ মিলিওন ডলার। যা এখনও পর্যন্ত বিশ্বের ১২তম Highest Grossing Film এবং এই সিরিজের ২য় সেরা Highest Grossing Film ।

মুক্তির প্রথম দিনই মুভিটি ৩৩.৩ মিলিওন ডলার আয় করে তৎকালীন একদিনের বক্স অফিস রেকর্ড ভাঙ্গে। দ্বিতীয় দিন ৩৩.৫ মিলিওন ডলার আয় করে নিজের গড়া একদিনের রেকর্ড আবার ভাঙ্গে মুভিটি। সপ্তাহজুড়ে মোট ৯০.৩ মিলিওন ডলার আয় করে তৎকালীন আরো একটি বক্স অফিস রেকর্ড ভাঙ্গে এটি।

কাহিনী সংক্ষেপ : মুভিটির শুরুতে দেখা যায়, হ্যারি এতিম অবস্থায় তার খালার বাড়িতে লালিত পালিত হয়। সেখানে তার খালা-খালু, খালাতো ভাই সবাই তার সাথে খারাপ ব্যবহার করে, সবাই তাকে অপ্রয়োজনীয় মনে করে। হ্যারি সব কিছু মুখ বুজে সহ্য করে যায়।খালাতো ভাই য়ের জন্মদিনে তারা, চিড়িয়াখানায় যায়।সেখানে হ্যারি দেখতে পায় সে সাপের সাথে কথা বলতে পারে এবং তার দ্বারা ম্যাজিক এর মাধ্যমে সেখানে এক হুলস্থুল কান্ড ঘটে যায়। এরপর তার ১১তম জন্মদিনের দিন তার কাছে দৈত্য সদৃশ হ্যাগ্রিড আসে। তার মাধ্যমে সে জানতে পারে সে সাধারন কোনো বাচ্চা নয়। তার বাবা-মা ছিল জাদুকর এবং হ্যারি নিজেও একজন জাদুকর। তার বাবা মাকে ভোল্ডেমোর্ট নামে অশুভ এক শক্তিশালী জাদুকর হত্যা করেছে। হ্যারিকেও সে মারার জন্য ভয়ানক জাদু প্রয়োগ করেছিল, কিন্তু হ্যারি অলৌকিক ভাবে সেই জাদু প্রতিহত করে ভোল্ডামর্টের কিছু শক্তি নিজেও লাভ করে। এই ব্যর্থতার ফলে ভোল্ডেমর্ট হয়ে পড়ে শক্তিহীন। এখন সে পলাতক হয়ে আছে। হ্যাগ্রিড তাকে আরও জানায় হগওয়ার্ট নামে একটি জাদুর স্কুল আছে সেখানে হ্যারিকে ছাত্র হিসাবে নেয়া হয়েছে। যার মাধ্যমে হ্যারি নিজেকে জাদুকর হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবে। অতঃপর হ্যারি হগওয়ার্টে যায় এবং অবাক বিস্ময়ে লক্ষ্য করে সে সেখানে পরিচিত।
সবাই এক নামে তাকে চিনে। কারন সেই একমাত্র ব্যক্তি যে ভয়ানক জাদুর হাত থেকে বেঁচে আছে।

বিভিন্ন ঘটনার মধ্য দিয়ে সে স্কুলে দিনযাপন করতে থাকে। এর মধ্যে তার হারমনি গ্রেঞ্জার আর রন উইসলির সাথে বন্ধুত্ব হয়। তারা জানতে পারে স্কুলের কোন এক যায়গায় লুকায়িত আছে ফিলোসোফার এর অমরত্ব লাভের পাথর। যার মাধ্যমে যে কেউ লাভ করতে পারে অমরত্ব। তারা সেটি খুঁজে বের করার চেষ্টা করে।

অন্যদিকে ভোল্ডামর্ট তার শক্তি হারিয়ে এখন পুরোনো শক্তি ফিরে পেতে চায় , অমরত্ব লাভ করতে চায়। ভোল্ডামর্টও অমরত্ব পাথরের পিছনে ছুটতে থকে। এভাবেই গল্প এগিয়ে যায় এবং একটি মীমাংসার মাধ্যমে শেষ হয় মুভিটি….

মুভির মাঝে রয়েছে অনেক হাসি,মজা আর বিস্ময়কর ঘটনা।
খুব ভালো একটা মুভি….💞💞💞💞

Leave a Reply

Your email address will not be published.